Amar janala-আমার জানলা lyric

আমার জানলা দিয়ে একটুখানি আকাশ দেখা যায়
একটু বর্ষা, একটু গ্রীষ্ম, একটুখানি শীত
সেই একটুখানি চৌকোছবি আঁকড়ে ধরে রাখি
আমার জানলা দিয়ে আমার পৃথিবী।
সেই পৃথিবীতে বিকেলের রং হেমন্তে হলুদ
সেই পৃথিবীতে পাশের বাড়ির কান্না শোনা যায়
পৃথিবীটা বড়ই ছোট আমার জানালায়
আমার জানলা দিয়ে আমার পৃথিবী
সেই পৃথিবীতে বাঁচবো বলে যুদ্ধ করি রোজ
একটুখানি বাঁচার জন্য হাজার আপোষ
সেই পৃথিবীর নাম কলকাতা কী ভারত জানিনা
তুমি তোমার পৃথিবীর নামটা জান কী
তুমি বলবে আমায়
তুমি বলবে আমার বেনিয়াপুকুর তোমার বেহালা
তুমি গন্ডি কেটে দেখিয়ে দেবে পশ্চিমবাংলা
হয়তো কেরালার আকাশটা আর একটু বেশি নীল
তবুও সেটাও কী নয় আমার পৃথিবী
আমার জানলা দিয়ে যায় না দেখা ইসলামাবাদ
শুধু দেখি আমি রোজ আমার পাশের বাড়ির ছাদ
একটা হলদে শাড়ি শুকোচ্ছে আজ মোজার
রংটা নীল
আজ পৃথিবীটা বড়ই রঙিন
কেউ জানলা খুলে অ্যালাবামায় বাংলা গান গায়
কেউ পড়ছে কোরান বসে তার জাপানী জানালায়
তুমি হিসেব করে বলতে পার প্যারিসের সময়
কিন্তু কার জানালায় কে কি দ্যাখে হিসেব
করা যায় কী বলো
মনের জানলা আছে……..
মনের জানলা দিয়ে তুমি বেরিয়ে পড়তে পার
মেক্সিকোতে বসে বাজানো যায় গীটার
কোথায় তুমি টানবে বলো দেশের সীমারেখা
আমার জানলা দিয়ে গোটা পৃথিবী
তাই জানলা আমার মানেনা আজ ধর্মের বিভেদ
জানলা জাতীয়তাবাদের পরোয়া করে না
জানলা আমার পূব না পশ্চিমের দিকে খোলা
জানলা সে তো নিজেই জানে না
জানলা আমার সকালবেলায় শোনায় ভৈরবী
আর সন্ধ্যেবেলায় শুধু জন কোল্ড্রিং
গানের সুরে রেশারেশি দেশাদেশি নেই
আমার গানের জানলা গোটা পৃথিবী…

Kanchonjongha- কাঞ্চনজংঘা lyrics

একটু ভালো করে বাঁচবো বলে আর একটু
বেশী রোজগার
ছাড়লাম ঘর আমি ছাড়লাম ভালোবাসা আমার
নীলচে পাহাড়
পারলো না কিছুতেই তোমার
কলকাতা আমাকে ভুলিয়ে দিতে
পাহাড়ি রাস্তার ধারে বস্তির আমার কাঞ্চনকে
কাঞ্চন জানা কাঞ্চন ঘর
কাঞ্চনজংঘা কাঞ্চন মন
তো পাইলে সোনা অনু লইয়ো
মউল্লা হাঙচুকাঞ্চন
সোনার খোঁজে কেউ কতদুর দেশে যায়
আমি কলকাতায়
সোনার স্বপ্ন
খুঁজে ফিরি একা একা তোমাদের ধর্মতলায়
রাত্রির নেমে এলে তিনশো বছরের সিমেন্টের
জঙ্গলে
ফিরে চলে যাই সেই পাহাড়ি বস্তির কাঞ্চনের
কোলে
জং ধরা রঙ চটা পার্কের বেঞ্চিটা আমার
বিছানা
কখন
যে তুলে নিয়ে গিয়েছিলো আমাকে তোমাদের
থানা
তিন মাস জেল খেটে এখন আমি সেই থানার
দারোয়ান
পারবো না ফিরে পেতে হয়তো কোনদিন
আমার সেই কাঞ্চন
কাঞ্চন জানা কাঞ্চন ঘর
কাঞ্চনজংঘা কাঞ্চন মন
তো পাইলে সোনা অনু লইয়ো
মউল্লা হাঙচুকাঞ্চন
বেড়াতে যদি তুমি যাও কোনদিন আমার
ক্যালিংপঙ
জেনে রেখো শংকর হোটেলের ভাড়া টুরিস্ট
লজের থেকে কম
রাত্রির নেমে এলে আসবে তোমার
ঘরে চুল্লিটা জ্বালিয়ে দিতে
আর কেউ নয় সে যে আমার
ফেলে আসা নীলচে পাহাড়ি মেয়ে
বলো না তাকে আমি দারোয়ান শুধু
বলো করছি ভালোই রোজগার
ঐ বস্তির ড্রাইভার চিগমির সাথে যেন
বেঁধে না ফেলে সংসার
আর কিছু
টাকা আমি জমাতে পারলে যাবো যাবো ফিরে
পাহাড়ি রাস্তার ধারের বস্তির আমার নিজের
ঘরে
আর যদি দেখ তার কপালে সিঁদুর বলো না কিছু
তাকে আর
শুধু এই সত্তর
টাকা তুমি যদি পারো গুজে দিও হাতে তার
ট্রেনের টিকিটের ভাড়াটা সে দিয়েছিলো কানের
মাকড়ী বেঁচে
ভালোবাসার সেই দাম তুমি দিয়ে দিও আমার
কাঞ্চনকে
কাঞ্চন জানা কাঞ্চন ঘর
কাঞ্চনজংঘা কাঞ্চন মন
তুমি যাকে বলো সোনা
আমি তাকে বলি কাঞ্চন
কাঞ্চন জানা কাঞ্চন ঘর
কাঞ্চনজংঘা কাঞ্চন মন
তো পাইলে সোনা অনু লইয়ো
মউল্লা হাঙচুকাঞ্চন

ভালোবাসি তোমায়

ফেলে আসা গান
ফেলে আসা জলসা
ফেলে আসা বন্ধু
ফেলে আসা রাস্তা
ফেলে আসা কত কথা
ফেলে রেখে এসেছি
ফেলে আসা সময় (২)
ফেলে আসা সাহস
ফেলে আসা ভয়
ফেলে আসা জুতো জামা
ফেলে দিতে হয়
ফেলতে ফেলতে কিছু কথা
থেকে গেছে, যেমন-
ভালোবাসি তোমায়
ভালোভালোভালোভাল­
োভালোবা…সি তোমায়
এখনো ঠিকি
ভালোবাসি তোমায়
একি ভাবে
ভালোবাসি তোমায়
ফেলে আসা বাজারে
ফেলে আসা দাম
ফেলে আসা তবলা হারমোনিয়াম (২)
ফেলে আসা খাটুনির কত কাল ঘাম
হারিয়ে গেছে কোথায়
ফেলে আসা রাজনীতি
ফেলে আসা ভুল
ফেলে আসা গপ্পের
ফেলে আসা গুল
ফেলতে ফেলতে কিছু কথা
থেকে গেছে, যেমন-
ভালোবাসি তোমায়
ভালোভালোভালোভাল­
োভালোবা…সি তোমায়
এখনো ঠিকি
ভালোবাসি তোমায়
একি ভাবে
ভালোবাসি তোমায়
ফেলে আসা রাগ
ফেলে আসা ক্ষোভ
ফেলে আসা বড়সড় কত মুল্যবোধ
ফেলে আসা আকাশের এক চিলতে রোদ
হারিয়ে গেছে কোথায়
আজ যেটা মিষ্টি, কাল সেটা ঝাল
টিকে থাকে না কিছুই চিরকাল
টিকে গেছে কেবল একটাই কথা
ভালোবাসি তোমায়
ভালোভালোভালোভাল­
োভালোবা…সি তোমায়
এখনো ঠিকি
ভালোবাসি তোমায়
একি ভাবে
ভালোবাসি তোমায়।

ম্যারী এ্যান

কালো সাহেবের মেয়ে ইশকুল পালিয়ে
ধরতে তোমার দুটো হাত
কত মার খেয়েছি মুখ বুজে সয়েছি
অন্যায় কত অপবাদ
বয়স তখন ছিলো পনেরো তাই ছিলো
স্বপ্ন দেখার ব্যারাম
মাথার ভেতর ছিলো এলভিস প্রিসলি
খাতার ভেতর তোমার নাম
ম্যারী এ্যান
ম্যারী ম্যারী এ্যান
ম্যারী এ্যান ম্যারী
করে সব এলোমেলো এলভিস চলে গেলো
কেটে গেলো বছর অনেক
তোমারো মামা কাকা একে একে পাড়ি দিলো
সব্বাই মিলে বিলেত
রয়ে গেলে তোমরা আকড়ে রিপন স্ট্রিট
দু’টো ঘর সিড়ির তলায়
নোনা দেয়াল থেকে যীশূ ছলছল চোখে
হাত তুলে আশ্বাস দেয় এখনো
ম্যারী এ্যান
ম্যারী ম্যারী এ্যান
ম্যারী এ্যান ম্যারী
রিকশায় চড়ে তুমি দুলে দুলে চলে যাও
আমার পাড়া দিয়ে প্রায়ই
পাক ধরে গেছে চুলে গাল দুটো গেছে ঝুলে
নিয়মিত অবহেলায়
কোন এক অফিসেতে শর্ট হ্যান্ড নিতে নিতে
নখগুলো গেছে ক্ষয়ে
ছোট্ট বেলার প্রেম আমার কালো মেম
কোথায় গেলে হারিয়ে
ম্যারী এ্যান
ম্যারী ম্যারী এ্যান
ম্যারী এ্যান ম্যারী
তোমার বাবা ছিলো ইঞ্জিন ড্রাইভার
আমার বনেদি ব্যবসা
বংশের ইজ্জত রাখতে হলে বউ হতে হবে ফর্সা
বাঙালীর ছেলে তাই গলায় গামছা দিয়ে
ফেললাম করে বিয়ে
ছোট্ট বেলার প্রেম আমার কালো মেম
কোথায় গেলে হারিয়ে
ম্যারী এ্যান
ম্যারী ম্যারী এ্যান
ম্যারী এ্যান ম্যারী